1

২০২৩ সালের মধ্যে উচ্চগতির ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগের আওতায় আসবে বাংলাদেশ: টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ||

বাংলাদেশের ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন,২০২৩ সালের মধ্যে সারাদেশ উচ্চগতির ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগের আওতায় আসবে।

বৃহস্পতিবার (১ সেপ্টেম্বর) নেত্রকোণা পাবলিক হলে, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে জরুরি খাদ্য সামগ্রী বিতরণকালে মন্ত্রী এ কথা বলেন। বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি নেত্রকোণা জেলা ইউনিট এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

টেলিযোগাযোগমন্ত্রী বলেন, “এক সময় টেলিযোগাযোগ ও ইন্টারনেট সংযোগ পর্যাপ্ত ছিল না। আমরা সে বিষয়টি সমাধান করেছি। এছাড়া নতুন প্রজন্মকে ডিজিটাল দক্ষতা দিতে না পারলে, উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণ ত্বরান্বিত করা সম্ভব হবে না।

মোস্তাফা জব্বার বলেন, “ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশের জীবনযাত্রা পাল্টে গেছে। যে গ্রামে থেকে একদিন হাইস্কুলে পড়তে পারিনি, সে গ্রামের শত শত শিক্ষার্থী আজ স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করছে। এছাড়া হাওরে এখন আউট সোর্সিং ইন্ডাস্ট্রি প্রতিষ্ঠা লাভ করেছে। নেত্রকোনা শহরের পাশে ধর্মপাশা উপজেলার আহমেদপুর গ্রাম থেকে এখন ৬০ জন প্রোগ্রামার সফটওয়্যার তৈরির কাজ করছে।”




ডিপথেরিয়ায় ৫৩ শিশুর মৃত্যুর পর ছড়াচ্ছে আতঙ্ক

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি।।

প্রাণঘাতী ডিপথেরিয়া রোগে আক্রান্ত হচ্ছে রোহিঙ্গা শিশুরা। চিকিৎসকরা বলছেন, এ রোগ অত্যন্ত ছোঁয়াচে। আক্রান্ত কোনও শিশুর সংস্পর্শে এলে দ্রুত অন্যদেরও সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি থাকে। সর্দি-কাশি ও হাঁচি থেকে এটি ছড়ায়।

কক্সবাজার সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্র জানায়, ২০১৭ সাল থেকে কক্সবাজারে অবস্থানরত রোহিঙ্গা শিশুদের শরীরে ডিপথেরিয়া রোগ শনাক্ত হয়। এর মধ্যে গত ছয় বছরে নমুনা পরীক্ষায় ৪০৯ জনের শরীরে ডিপথেরিয়া রোগ শনাক্ত হয়। তাদের মধ্যে চার জন ছিল বাংলাদেশি। বাকি ৪০৫ জন ছিল রোহিঙ্গা শিশু। শনাক্তদের মধ্যে ৫৩ জন মারা গেছে। তাদের বেশির ভাগের বয়স ৫ থেকে ১৫ বছরের মধ্যে।

চলতি বছর আগস্ট পর্যন্ত আট মাসে ৩৭ জনের শরীরে ডিপথেরিয়া রোগ শনাক্ত হয়। তাদের মধ্যে ৪ জন বাংলাদেশি এবং ৩৩ জন রোহিঙ্গা শিশু। মারা গেছে একজন। ২০২১ সালে শনাক্ত ৩০ জনের মধ্যে মারা যায় একজন। ২০২০ সালে ১৯ জন শনাক্ত হয়। ২০১৯ সালে ৩১ জন শনাক্ত হয়। মারা যায় ৩ জন। ২০১৮ সালে ২২৬ জন শনাক্ত হয়। মারা যায় ১৪ জন। ২০১৭ সালে ৬৬ জন শনাক্ত হয়। তাদের মধ্যে ৩০ জন মারা যায়।

কক্সবাজার সিভিল সার্জন কার্যালয়ের রোগ নিয়ন্ত্রক ডা. ফাহিম আহমেদ ফয়সাল বলেন, ‘কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শিশুরা প্রতি বছরই ডিপথেরিয়া রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। আমাদের দেশের শিশুদের জন্মের ১৪-১৫ মাসের মধ্যে যেসব টিকা দেওয়া হয় তার মধ্যে ডিপথেরিয়া রোগের টিকাও রয়েছে। এ কারণে বাংলাদেশে এ রোগ নেই। তবে রোহিঙ্গা শিশুরা মিয়ানমারে ঠিকমতো টিকা পায়নি। এ কারণে বাংলাদেশে আসার পর থেকে তাদের শরীরে এ রোগ ধরা পড়ছে। গত আট মাসে যে ৩৭ জন শনাক্ত হয়েছে তার মধ্যে চার বাংলাদেশি শিশুও রয়েছে।’

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেজ (বিআইটিআইডি) হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক মো. মামুনুর রশিদ বলেন, ‘অত্যন্ত ভয়ংকর একটি রোগের নাম ডিপথেরিয়া। গত দেড় বছরে ৯ রোহিঙ্গা শিশু এ রোগের লক্ষণ নিয়ে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি হয়েছে। এসব শিশুকে টেকনাফ থেকে এ হাসপাতালে হস্তান্তর করা হয়। এর মধ্যে দুই শিশু মারা গেলেও বাকিরা সুস্থ হয়ে ফিরে গেছেন। ভর্তি হওয়া ৯ শিশুর বয়স ছিল ৫ থেকে ৯ বছরের মধ্যে।’

তিনি জানান, এ রোগের লক্ষণগুলোর মধ্যে রয়েছে– জ্বর, গলাব্যথা, কাশি এবং জটিল পর্যায়ে গেলে মারাত্মক শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। এ রোগ শ্বাসনালিকে ব্লক করে দেয়। এ কারণে মৃত্যুর ঝুঁকি থাকে।

কেন রোহিঙ্গা শিশুরা ডিপথেরিয়া রোগে আক্রান্ত হচ্ছে? এমন প্রশ্নের উত্তরে ডা. মামুনুর রশিদ বলেন, ‘আমাদের দেশের শিশুকে জন্মের পর থেকে সরকারিভাবে যে দশটি রোগের টিকা দেওয়া হয় তার মধ্যে ডিপথেরিয়ার টিকা রয়েছে। এ কারণে আমাদের দেশের শিশুরা এ রোগে আক্রান্ত হয় না। তবে রোহিঙ্গা শিশুরা মিয়ানমারে এ টিকা পাননি। তাদের শিশুরা টিকার আওতার বাইরে থাকায় এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থাকে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এ রোগ মারাত্মক ছোঁয়াচে। আক্রান্ত কারও সংস্পর্শে অন্য শিশু গেলে তারও আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থাকে।’

চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইলিয়াছ চৌধুরী বলেন, ‘ডিপথেরিয়া রোগে কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শিশুরা আক্রান্ত হয় বলে আমাদের কাছে তথ্য আছে। তবে আমাদের দেশের কোনও শিশুর এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার তথ্য নেই। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এ রোগে আক্রান্ত শিশুর অবস্থা জটিল হলে তাকে চট্টগ্রামের বিআইটিআইডি হাসপাতালে হস্তান্তর করেন। ডিপথেরিয়া রোগ নিয়ে দেশের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর) গবেষণা করছে বলেও জেনেছি।’

কক্সবাজার রোহিঙ্গা ক্যাম্পের প্রধান স্বাস্থ্য সমন্বয়ক ডা. আবু তোহা ভুঁইয়া বলেন, ‘বাংলাদেশের শিশুদের মাঝে ডিপথেরিয়া রোগটি নেই। বাংলাদেশি শিশুদের জন্মের পর থেকে যেসব টিকা দেওয়া হয় সেগুলোর মধ্যে ডিপথেরিয়া রোগের টিকাও রয়েছে। এ কারণে বাংলাদেশে এ রোগের আক্রান্তের হার শূন্য। রোহিঙ্গা শিশুরা নিজ দেশে টিকার আওতার বাইরে ছিল। এখন তাদেরও সব ধরনের টিকা দেওয়া হচ্ছে। আমরা চেষ্টা করছি, রোহিঙ্গা শিশুদের মাঝেও ডিপথেরিয়া রোগটি শূন্যে নিয়ে আসার।’

তিনি আরও বলেন, ‘আক্রান্ত শিশুকে আমরা পরিবার থেকে আলাদা করে ফেলি। অর্থাৎ আইসোলেশনে রাখা হয়। যারা ওই শিশুর সংস্পর্শে এসেছিল তাদেরও আইসোলেশনের পাশাপাশি প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেওয়া হয়। কেননা এ রোগ ছোঁয়াচে। এ শিশুর সংস্পর্শে আসা অন্যদেরও এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থাকে।’

সরকার ইপিআইয়ের মধ্যে অতি জরুরি ১০টি রোগের অর্থাৎ যক্ষ্মা, ডিপথেরিয়া, ধনুস্টংকার, হুপিংকাশি, পোলিও, হেপাটাইটিস বি, সিপিভি, হিমোফাইলাস ইনফ্লুয়েঞ্জা, এসআর  ভ্যাকসিন দিচ্ছে। জন্মের পর প্রথম ১৪ দিনের মধ্যে বিসিজি ও পোলিও ভ্যাকসিন দেওয়া যায়। এরপর বয়স ৬ সপ্তাহ বা ৪২ দিন থেকে বাকি টিকা দেওয়া শুরু হয়। এরপর একে একে টিকাগুলো ১৫-১৬ মাসের মধ্যে পাঁচ বারে শেষ করতে হয়।




মসজিদে আত্মঘাতী হামলায় তালেবানপন্থী ধর্মীয় নেতাসহ নিহত ১৮

আন্তর্জাতিক ডেস্ক।।

আফগানিস্তানের পশ্চিমাঞ্চলীয় হেরাত শহরের একটি মসজিদে বিস্ফোরণে ক্ষমতাসীন তালেবানের শীর্ষ পর্যায়ের এক ধর্মীয় নেতাসহ অন্তত ১৮ জন নিহত হয়েছে। শুক্রবার এই বিস্ফোরণ ঘটে। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা এখবর জানিয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রকাশিত ছবিতে দেখা গেছে, মসজিদের প্রাঙ্গনে রক্তাক্ত দেহ ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে।

তাৎক্ষণিকভাবে এই হামলার দায় কোনও গোষ্ঠী স্বীকার করেনি।

হেরাত প্রদেশের গভর্নরের মুখপাত্র হামিদুল্লা মোতাওয়াকিল বলেন, ১৮ জন নিহত ও অপর ২৩ জন আহত হয়েছে।

শুক্রবার জুমার নামাজের সময় গুজারগা মসজিদে এই বিস্ফোরণ ঘটে। বিস্ফোরণে কয়েকজন দেহরক্ষীসহ তালেবানপন্থী ধর্মীয় নেতা মুজিব রহমান আনসারী ও বেশ কয়েকজন বেসামরিক নিহত হয়েছেন।

হেরাত পুলিশের মুখপাত্র মাহমুদ রাসুলি আনসারী নিহত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, এক আত্মঘাতী বোমা হামালকারী তার (আনসারী) হাতে চুমু খাওয়ার সময় বিস্ফোরণ ঘটায়।

তালেবান মুখপাত্র জবিউল্লাহ মুজাহিদ বলেছেন, হামলায় জড়িতদের শাস্তি দেওয়া হবে।

জুন মাসের শেষ দিকে মুজিব রহমান আনসারী কয়েক হাজার ধর্মীয় নেতা ও প্রবীনদের সমাবেশে দৃঢ়ভাবে তালেবানের প্রতি সমর্থন জানিয়ে কথা বলেছেন। সমাবেশটি আয়োজন করেছিল তালেবান। কট্টরপন্থীদের প্রশাসনের বিরুদ্ধাচারণকারীদের নিন্দা জানিয়েছিলেন তিনি।

মাত্র এক মাসের মধ্যে বিস্ফোরণে নিহত দ্বিতীয় তালেবানপন্থী ধর্মীয় নেতা আনসারি। এর আগে কাবুলে একটি মাদ্রাসায় আত্মঘাতী বোমা হামলায় নিহত হয়েছিলেন রহিমুল্লাহ হাক্কানি। সশস্ত্র গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) বিরোধী ক্ষুব্ধ ভাষণ দেওয়ার জন্য পরিচিত ছিলেন রহিমুল্লাহ। তাকে হত্যার দায় স্বীকার করেছে আইএস।

আফগানিস্তানে শিয়া মুসলিমদের টার্গেট করে শুক্রবার জুমার নামাজের সময় বেশ কয়েকটি আত্মঘাতী হামলা চালিয়েছে আইএস।