হোসাইন নীরবের বিয়েটা কি হবে?

নাদিম হোসেন খাঁন।। টিভি অভিনেতা হোসাইন নীরবের বিয়ে টা আজও হবে এমন এক প্রশ্নের উত্তর পেতে আসছে নাটক বিয়ে টা কি হবে?

 

পাপ্পু রাজ রচনায় এবং মুসাফির রনি পরিচালনায় অভিনয় করেছেন হোসাইন নীরব, অলংকার চৌধুরী, আবদুল্লাহ রানা, রকি খান,রেশমা আহমেদ,ওয়াসিম আকরাম, তৌহিদুল ইসলাম, সুমন আহমেদ, ফেরারী সুমন

কাহিনী সংক্ষেপ :

সৈকত আর তার প্রেমিকা নাবিলা দুজনেই বর আর কণে সেজে রিক্সায় যাচ্ছে। সৈকত খুবই খুশি, কারন তার বাবা মা আর নাবিলার বাবা মা আজ থেকে পনেরো দিন পর তাদের বিয়ে ঠিক করেছে। কিন্তু সৈকত আর নাবিলার একা থাকতে আর ভাল লাগছে না। তারা সিদ্ধান্ত নিয়েছে আজই বিয়ে করে বাবা মাকে চমকে দেবে। বিয়ের যে খরচের টাকা বাঁচবে সেটা দিয়ে তারা হানিমুনে যাবে,সে কি মজা হবে ! রিক্সার সাইডে এসে ফোনে কথা বলতে বলতে বাইক থামায় নাবিলার এক্স বয়ফ্রেন্ড জিসান। নাবিলা জিসানকে দেখে রিক্সা থেকে হাই হ্যালো দিতে দিতে নেমে জিসানের সাথে বাইকে চড়ে সৈকত কে টাটা দিয়ে চলে যায়। সৈকত রিক্সায় বসেই থাকে। নাবিলা বাসায় ফিরে এলে নাবিলার বাবা জিগেস করে সৈকতের সাথে কি সে বিয়ে করতে কাজী অফিসের দিকে যাচ্ছিলো কি না। নাবিলা বলে না। নাবিলার বাবা নাবিলাকে ধমক দিয়ে বলে এই সুযোগ টা কেন সে হাতছাড়া করলো ? সাথে সাথে নাবিলাকে নিয়ে সৈকতের বাসায় যায় নাবিলার বাবা সোলেমান খান। সে মেয়েকে বিয়ে দিয়ে আসতে চাইলে সৈকতের বাবা মা এই বিয়েই ক্যান্সেল করে।

সৈকতও বেকে বসে,কারন সে এই নাবিলার জন্য রিক্সাওয়ালার হাতে মার খেয়েছে !

নাবিলা নাছোড়বান্দা সৈকতের বাসায় বসে পড়লে, সৈকত তার বাবা মাকে নিয়ে বাইরে এসে বসে থাকে। নাবিলাকে কোনভাবেই তারা বৌ হিসেবে মেনে নেবে না। সৈকত আর বাবা মা রাতের বেলা নিরুপায় হয়ে মশার কামড় খেয়ে বাসায় যায়। নাবিলাকে মেনে নিতে চায়। পরদিন সকালেই বিয়ে হবে। সকাল সকাল সৈকতের বাসায় এসে উপস্থিত হয় কাজী সাহেব। বিয়ে পড়ানোর একটু আগে এসে জিসান কাবিননামা নিয়ে হাজির হয়। জিসান দাবী করে সেদিন বিয়ে হয়েছিল নাবিলার সাথে। নাবিলাও সত্য স্বীকার করে । বিয়েটা আবার ভেঙে যায়। সৈকত নাবিলার ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়।

সৈকত একটা ব্যাপার বুঝতে পারে না। কেন নাবিলা এমন কানামাছিটা তার সাথে করলো ? সৈকতের কী দোষ ছিল ? নাবিলা কিছুদিন পর আবার সৈকতের বাসায় এসে হাজির হয়। নাবিলা বলে সৈকতের সাথে আমি নাটক করেছিলাম। আমি চাইনি । এভাবে কাজী ডেকে এনে আমাদের বিয়েটা হোক। আমার মন চেয়েছিল ধুমধাম করেই বিয়েটা হোক। সৈকতকে কয়েকবার বলার পরও সৈকত রাজী হয় নি। তাই জিসান কে দিয়ে মিথ্যা নাটক করিয়ে সৈকত কে শিক্ষা দিয়েছি। কেন সে আমার কথা শুনলো না। কিন্তু আসলে নাবিলা এই কয়দিনে সৈকতের অনুপস্থিতি বুঝতে পেরেছে। নাবিলা ক্ষমা চায়। সৈকত বলে ঠিকাছে ক্ষমা করলাম। এবার তাহলে কাজী ডাকা হোক। কাজী সাহেব আসেন। বসেন। বিয়ে পড়ানোর একটু আগে , কাজী সাহেবের মৃগি রোগ উঠে। তার নাকে দেয়ার জুতা খুঁজতে খুঁজতে সবাই অস্থির হয়ে বলে,আসলে বিয়েটা কি হবে ?

 

নাটকটি ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩ শুক্রবার রাত ৯ঃ৩০ মিনিটে এনটিভিতে প্রচারিত হবে।

এই বিভাগের আরো খবর