অর্থনীতি

সোনালী লাইফের চেয়ারম্যান হলেন মোস্তফা গোলাম কুদ্দুস

পুঁজিবাজার ডেস্ক:

দেশের সবচেয়ে দ্রুত বর্ধনশীল চতুর্থ প্রজন্মের বীমা কোম্পানি সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন প্রখ্যাত শিল্পপতি ও বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি মোস্তফা গোলাম কুদ্দুস।

কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদের সভায় সম্প্রতি তাকে সর্ব সম্মতিক্রমে চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত করা হয়।

গত ২৮ অক্টোবর (শনিবার) রাজধানীর মালিবাগ চৌধুরী পারা কোম্পানির প্রধান কার্যালয়ে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

ডিজিটাইজেশনের মাধ্যমে শিল্পে গুণগত পরিবর্তন আনা, সুশাসন প্রতিষ্ঠা এবং পলিসি হোল্ডারদের অধিকার রক্ষার পাশাপাশি বীমা খাতের কর্মচারীদের প্রাতিষ্ঠানিকভাবে প্রতিশ্রুতি ও উদ্দেশ্য নিয়ে কোম্পানিটি ২০১৩ সালের ১লা আগস্ট যাত্রা শুরু করেছিল।

বিদায়ী চেয়ারম্যানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বপ্নদ্রষ্টা ও প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক মোস্তফা গোলাম কুদ্দুস, ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মীর রাশেদ বিন আমানসহ অন্যান্য পরিচালকরা উপস্থিত ছিলেন।

চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করে মোস্তফা গোলাম কুদ্দুস বলেন, সোনালি লাইফ দেশের বিমা শিল্পে প্রাতিষ্ঠানিক ও গুনগত পরিবর্তন আনতে এবং পেশাদারিত্ব প্রতিষ্ঠা করতে নিরলস কাজ করে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে পরিপূর্ণ ডিজিটাল সেবা নিশ্চিত করে গ্রাহকের চাহিদা পূরণ, মেয়াদ শেসে দ্রুততম সময়ে বিমা দাবি পরিশোধ করে সোনালি লাইফ চমক সৃষ্টি করেছে যার কারনেই প্রতিষ্ঠানটি ধারাবাহিক ভাবে উচ্চ প্রবদ্ধি অর্জন করে চলেছে।

তিনি সোনালি লাইফের এই সাফল্যের জন্য কোম্পানির পরিচালনা পরিষদের ইতিবাচক নির্দেশনা, বাবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের দক্ষ পরিচালনা এবং কর্মকর্তা ও কর্মচারি দের নিরলস শ্রম সম্মিলিত ভাবে অবদান রেখেছে বলে উল্লেখ করেন।

উল্লেখ্য, অতি সম্প্রতি সোনালী লাইফ মোট ছয়টি বিভাগে মর্যাদাপূর্ণ ‘কমনওয়েলথ বিজনেস এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড-২০২৩’ নামে মর্যাদাপূর্ণ এবং বিশ্বব্যাপী স্বীকৃত পুরস্কার অর্জন করেছে যখন সোনালী লাইফের সিইও মীর রাশেদ বিন আমান অর্জনে তার দক্ষ নেতৃত্বের স্বীকৃতিস্বরূপ। টার্গেটেড গ্রোথ, ‘দ্য সিইও অফ দ্য ইয়ার’ এবং ‘দ্য ইন্ডাস্ট্রি অ্যাম্বাসাডর অফ দ্য ইয়ার’ শিরোনামের দুটি মর্যাদাপূর্ণ পুরস্কার অর্জন করেছে।

এর আগে, কোম্পানিটি ২০২২ সালে চারটি ভিন্ন বিভাগে ‘সাউথ এশিয়া বিজনেস এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড’ শিরোনামে আরেকটি বিশ্ব পুরস্কার জিতেছিল।

 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button