মিয়ানমার সীমান্তে সংঘর্ষ চলছে,শতাধিক সীমান্তরক্ষী বাংলাদেশে ঢুকতে চায়

সময়ের চিত্র ডেস্ক:

সীমান্তের ওপারে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সঙ্গে দেশটির বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন আরাকান আর্মির সংঘর্ষ অব্যাহত রয়েছে। আরাকান আর্মির সঙ্গে সংঘর্ষে টিকতে না পেরে মিয়ানমারের বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) সেক্টর-২ এর শতাধিক সদস্য বাংলাদেশে ঢুকতে চায়। তারা উপজেলার জামছড়ি সীমান্তে জড় হয়েছে বলে স্থানীয় সুত্রে জানাগেছে। খবর পেয়ে বাংলাদেশ সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিজিবি সীমান্তে নিরাপত্তা জোরদার করেছে।

গত ১১ মার্চ তিন দফায় জামছড়ি সীমান্ত দিয়ে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর তিন কর্মকর্তাসহ ১৭৯ জন জান্তা সদস্য বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করে। নাইক্ষ্যংছড়ি সদরের বর্ডার গার্ড সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তাদের আশ্রয় দেয়া হয়েছে। সাত দিন ধরে তারা এখানে রয়েছেন।

সীমান্তের আশারতলী গ্রামের ছৈয়দ হোসেন, আবদুস সালাম, মোহাম্মদ জাকারিয়া বলেন, জামছড়ির ওপারে কাঁটাতার ঘেঁষে জান্তা সরকারের শতাধিক সদস্য আশ্রয় নিয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে,তারা বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়ার অপেক্ষায় আছে। আজ রোববার বিকেলে তারা সীমান্তের সামান্য ভেতরে ঢুকে গেছে। আজ রোববার বিকেল নাগাদ এ দৃশ্য দেখেছেন তারা।

জানা গেছে, উদ্ভূত পরিস্থিতিতে নাইক্ষ্যংছড়ির জামছড়ি, চাকঢালা, আশারতলি, লেম্বুছড়ি ও পাইনছড়ি সীমান্তে বিজিবির টহল বাড়ানো হয়েছে। সীমান্তের ওপারে মিয়ানমারের জান্তা বাহিনীর সঙ্গে সে দেশের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন আরাকান আর্মির সংঘর্ষ ব্যাপক আকার ধারণ করায় অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি এড়াতে সীমান্তে নিরাপত্তা জোরদার করেছে বিজিবি।

এদিকে সেক্টর-২-এর আরও শতাধিক সদস্য জামছড়ি জারুলিয়াছড়ি নুরুল আলম কোম্পানির লেবু বাগানের পাশে বাংলাদেশে ঢোকার অপেক্ষায় রয়েছেন। এখানে মিয়ানমারের বিপুলসংখ্যক সেনাসদস্য জড়ো হয়েছেন। আজকালের মধ্যে সীমান্তের জিরো লাইনে তারা আশ্রয় নিতে পারেন বলে ধারণা করছেন সীমান্ত এলাকার লোকজন।

বান্দরবানের জেলা প্রশাসক শাহ্ মোজাহিদ উদ্দিন জানান, বিজিবি ও প্রশাসনের পক্ষ থেকে সার্বিক সীমান্ত পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।

এই বিভাগের আরো খবর