ভোলায় জেলা বিএনপির নবগঠিত কমিটি পুর্নাাঙ্গ করায় গনমিছিল

 

ভোলা প্রতিনিধি।।

 

দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি এবং নবগঠিত আহ্বায়ক কমিটিকে পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে রূপান্তর করায় কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকে অভিনন্দন জানিয়ে গণ মিছিল করেছে ভোলা জেলা বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মীবৃন্দ।

 

আজ বৃহস্পতিবার (০৬ জুলাই) সকালে ভোলা জেলা বিএনপি আয়োজিত গণ মিছিলটি মহাজনপট্টি দলীয় কার্যালয় থেকে শুরু হয়ে সদর রোড, নতুন বাজার, বাসস্ট্যান্ড, কালিনাথ রায়ের বাজারসহ শহরের প্রধান প্রধান সড়ক পদক্ষিণ করে আবার দলীয় কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়।

 

এসময় নেতাকর্মীরা খালেদা জিয়ার শর্তহীন মুক্তির দাবীসহ বিভিন্ন স্লোগান দেন। র‌্যালী শেষে সংক্ষিপ্ত শুভেচ্ছা বক্তব্যে নেতৃবৃন্দ ভোলা জেলা বিএনপির নবগঠিত আহ্বায়ক কমিটি পূর্ণাঙ্গ করায় দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান দেশনায়ক তারেক রহমান, বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ কেন্দ্রীয় নেতা কর্মীদেরকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান।

 

এসময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা বিএনপির সদস্য সচিব রাইসুল আলম, সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক শফিউর রহমান কিরণ, যুগ্ম আহ্বায়ক হারুন অর রশিদ ট্রুম্যান, যুগ্ম আহ্বায়ক ও পৌর বিএনপির সভাপতি আঃ রব আকন, যুগ্ম আহ্বায়ক কবির হোসেন, যুগ্ম আহ্বায়ক বশির হাওলাদার, যুগ্ম আহ্বায়ক মার্শাল হিমু, জেলা যুবদলের সভাপতি জামাল উদ্দিন লিটন, সিনিয়র সহসভাপতি ফখরুল ইসলাম ফেরদৌস, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক মোস্তফা কামাল, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ মনির হাসান, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক জাকির হোসেন রুবেল, সাংগঠনিক সম্পাদক আকব আকন, জেলা শ্রমিকদল সভাপতি শহিদুল ইসলাম মানিক, জেলা ছাত্রদল ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো: জসিম উদ্দিন প্রমুখ। এসময় জেলা বিএনপি, উপজেলা বিএনপি, ইউনিয়ন বিএনপি, যুবদল, স্বেচ্চাসেবক দল, শ্রমিক দল, ছাত্রদলের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

 

এসময় বক্তারা বলেন, এই স্বৈরাচারী হাসিনা সরকার পুলিশ বাহিনী দিয়ে গায়ের জোরে ক্ষমতা দখল করে রেখেছে। বিএনপি চেয়ারপারসনকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করছে। এই ফ্যাস্যবাদী সরকার বিএনপি নেতাকর্মীদেরকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করছে। আমরা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার শর্তহীন মুক্তি চাই। এছাড়াও বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার চাই। বক্তারা বলেন, বর্তমান সরকার লুটপাট করে বিদেশে টাকা পাচার করছে। দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির কারণে মানুষ হিমশিম খাচ্ছে। মানুষ আয়ের সাথে ব্যায় মিলাতে পারছে না। বাজারে গেলে খালি হাতে ফিরতে হচ্ছে। অথচ আওয়ামী লীগের নেতা থেকে শুরু করে কর্মী পর্যন্ত সবাই আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়েছে। তারা ব্যাংক, ব্যালেন্স করেছে। বিদেশে টাকা পাচার করছে। অথচ দেশের মানুষ না খেয়ে কষ্টে দিন কাটাচ্ছে। এই স্বৈরাচারী ফ্যাসিবাদী হাসিনা সরকার দেশের মানুষের কথা চিন্তা করে না। বক্তার আরও বলেন, এই সরকার গণতন্ত্রকে হত্যা করেছে। তার সকল নেতাকর্মীকে ঐক্যবদ্ধভাবে রাজপথে থেকে আন্দোলন সংগ্রাম করতে হবে। শেখ হাসিনা সরকারের পতন ঘটিয়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকার বাস্তবায়ন করতে হবে। এ জন্য সকলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলন সংগ্রাম চালিয়ে যেতে হবে।

এই বিভাগের আরো খবর