Home এক্সক্লুসিভ বিশ্বকাপ আর বাংলাদেশ

বিশ্বকাপ আর বাংলাদেশ

72
0
SHARE
কাল অথবা পরশু মেলবোর্নের এমসিজিতে শেষ হয়ে যাচ্ছে ক্রিকেটের আরো একটি বিশ্বকাপ।সালেক সুফী বাবর আজম অথবা জস বাটলারের হাতে উঠেবে বিশ্বকাপ। গত কয়েক সপ্তাহ যাবৎ বিশ্ব ক্রিকেট অঙ্গনকে মাতিয়ে রেখেছিলো ক্রিকেট। পাকিস্তান বা ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপ জয়ে কোনো বিস্ময় নেই। দুটি দোল প্রাক টুর্নামেন্ট ফেভরিট তালিকায় ছিল. দু ধাপে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপে বিস্ময় ছিল দুইবারের চ্যাম্পিয়ন ওয়েস্ট ইন্ডিজ কোয়ালিফাই করতে বার্থ হওয়া। আরো কিছু বিস্ময় ছিল আয়ারল্যান্ড ইংল্যান্ডকে, নেদারল্যান্ড দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে দেয়া। স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়া সেমী ফাইনাল থেকে ছিটকে পড়া খেলার ধারায় অস্বাভাবিক মনে হয় নি. এবারের টুর্নামেন্টের বড় অর্জন আইসিসি সহযোগীদের সাহসী ভূমিকা ,বড় দল ছোট দল ব্যাবধান ঘুচে যাওয়া। বাংলাদেশ ,জিম্বাবোয়ে সতর্ক না হলে অচিরেই নেদারল্যান্ড ,আয়ারল্যান্ড ,স্কটল্যান্ডের মতো দেশগুলো ওদের ছাড়িয়ে যেতে পারে। অন্নান্ন দক্ষিণ এশিয়ান দেশের মতো বাংলাদেশেও আছে ক্রিকেট পূজারী কোটি জনতা। আইসিসি মূলধারার নিচের দিকের সারিতে থাকায় বাংলাদেশের কদাচিৎ সুযোগ হয় অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ন, সিডনি ,ব্রিসবেন বা এডিলেড খেলা। ভারত, পাকিস্তান ,শ্রীলংকার মতোই প্রবাসী বাঙালিরা বিপুল সংখ্যায় ছুতে যায় বাংলাদেশ দলকে উৎসাহ জোগাতে। বাংলাদেশ এবারে অনভিজ্ঞ দল দিয়ে সব চেয়ে কম প্রস্তুত হয়ে বিশ্বকাপ খেলতে এসেছিলো. ফলাফল তথৈবচ। সৌভাগ্য কোয়ালিফিকেশন রাউন্ড খেলতে হয় নি. হলে বিপদ ছিল. সুপার ১২ দুটি নিম্ন সারির দল নেদারল্যান্ড আর জিম্বাবোয়ের সঙ্গে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের পর. ভারত ,পাকিস্তানের বিরুদ্ধে খেলা দুইটিতে কিছু সিদ্ধান্ত বাংলাদেশের বিরুদ্ধে গেলেও জিতে যেত বাংলাদেশ নিশ্চিত করে বলা যায় না. নিজেদের গ্রুপে ৬ দলের মধ্যে শেষ করেছে ৫ম. শান্ত আর লিটনের ব্যাটিং ছাড়া অন্য কারো বিশ্বকাপে খেলার যোগ মনে হয় নি. তাসকিনকে বিশ্বমানের মনে হয়েছে, মুস্তাফিজ জড়তা কাটিয়ে উঠেছে। সাকিব ওর মান অনুযায়ী কিছুই করেনি। বাংলাদেশ এই পর্যায়ে খেলার যোগ্য বলেই মনে হয় নি. তামিম, মুশফিক ,রিয়াদের সুন্নত নিদারুন ভাবে চোখে পড়েছে। বাংলাদেশের একঝাঁক ক্রিকেট রিপোর্টার , বিসিবির কর্মকর্তা বৃন্দ খেলা দেখতে এসেছে। অনেকে ম্যাথ থেকে সরাসরি প্রতিবেদন ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় পাঠিয়েছে। তবে টাইগার শোয়েব আর অস্ট্রেলিয়ায় থাকা রুবেলকে চোখে পড়েছে। বলতেই হয় বাংলাদেশ প্রত্যাশা পূরণ করেনি। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড বিশ্বকাপের গুরুত্ব আদৌ বুঝে কিনা সন্দেহ হয়. প্রতিবেদক ৫০ বছরের বেশি সময় ধরে ক্রিকেট নিয়ে পর্যালোচনা করি. বিশ্বের বিভিন্ন মাঠে খেলা দেখার অভিজ্ঞতা আছে. যদি কিছু মনে না করেন বলবো দৃভঙ্গি পাল্টে বাংলাদেশ ডোমেস্টিক ক্রিকেটের খোল নলচে পাল্টে ফেলে পরিকল্পিত উপায়ে না এগুলে বৈষয়িক ক্রিকেটে অপাংতেয় হয়ে থাকবে। পঞ্চ পাণ্ডবরা চলে গেলে বাংলাদেশ ক্রিকেটে কন্যার মতো পরিণতি হতে পারে। ক্রিকেট দূতিয়ালি বলে একটা জিনিস আছে. বিসিবি সেটি আদৌ জানে বলে সন্দেহ। আশা নিয়েই বেঁচে থাকে মানুষ। ক্রিকেটই একমাত্র খেলা যেখানে বাংলাদেশ বিশ্ব মঞ্চে আসে. নিকট প্রতিবেশী পাকিস্তান, ভারত ,শ্রীলংকা থেকেও বাংলাদেশ কেন কিছু শিখে ? জানিনা আবার কবে অস্ট্রেলিয়ায় আমরা বাংলাদেশকে দেখবো জানিনা। আপাতত কাল অনুষ্ঠিতব্য ফাইনাল নিয়েই থাকি।
image_print