Home বিচিত্র খবর কষ্ট ও যন্ত্রণায় প্রতিশোধ পরায়ন হয়ে উঠেন জার্মান নায়ক হিটলার

কষ্ট ও যন্ত্রণায় প্রতিশোধ পরায়ন হয়ে উঠেন জার্মান নায়ক হিটলার

58
0
SHARE

সময়ের চিত্র অনলাইন ডেস্কঃ

অ্যাডলফ হিটলার। পৃথিবীর ইতিহাসের তার নামটা নাৎসীদের নেতা ও স্বৈরাচারী শাসক হিসেবে উল্লেখ্য হলেও জামার্নীদের কাছে তিন মহানায়ক। তার উগ্র জাতীয়তাবাদই এ জনপ্রিয়তার কারণ।কিন্তু কি কারণে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় এত ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেছিলেন তিনি। সেই প্রশ্নে উত্তর খুঁজেছেন একজন ইতিহাসবিদ।

ব্রিটিশ গণমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানে তা নিয়ে একটি প্রতিবেদনও প্রকাশ করা হয়েছে। সেই গবেষণার অংশ হিসেবে এক বিস্ফোরক তথ্য দিয়েছেন ওই ইতিহাসবিদ। তিনি জানান, নাৎসি পার্টির প্রধান হওয়ার পেছনে হিটলারের মনে ছিল অন্য এক রাজনৈতিক দল থেকে প্রত্যাখ্যাত হওয়ার যন্ত্রণা।

গার্ডিয়ানের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, একাধারে কুখ্যাত এবং বিখ্যাত এই স্বৈরাচার প্রথমে জার্মান সোশালিস্ট পার্টিয়ে যোগ দিতে চেয়েছিলেন।
ইতিহাসবিদ থমাস ওয়েবার বলেন, যদি সেই সময় জার্মানের ডানপন্থী সোশালিস্টরা হিটলারকে নিতেন, তবে দলের ছোট কোনো দায়িত্বেই বসানো হতো তাকে। কিন্তু নাৎসিদের থেকেও অনেক বড় হতো সেই ভূমিকা।

হিটলার তার আগে যোগ্য নেতৃত্বের কোনো গুণাবলী দেখাতে পারেননি। ঊর্ধ্বতনদের নির্দেশনা পালন করেই অভ্যস্ত ছিলেন। কিন্তু হিটলারের কাছ থেকে ভালো কিছু পাওয়ার আশা বা আত্মবিশ্বাস মেলেনি সোশালিস্টদের। যদি হিটলার ওই দলে যোগ দিতেন, তবে সোশালিস্টরা হয়তো নাৎসিকে নিজের মধ্যে নিয়ে নিত।

তখন নাৎসিদের ইতিহাস হয়তো এমন হতো না। তারা অন্য কোনো পথে চলত, বলেন ওয়েবার।
যদি তাই ঘটত, হয়তো দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধই ঘটত না। হতো না হলোকাস্ট। ইউনিভার্সিটি অব অ্যাবারডিন ওয়েবার ইনডিপেনডেন্টকেও জানান এসব কথা। ১৯১৯ সালে মিউনিকের এক আর্কাইভে বলা হয়, জার্মান সোশালিস্টরা হিটলারকে নিজেদের সদস্য হিসেবে গ্রহণ করে নেয়নি। এমনকি তারা ওই দলের কোথাও কিছু লেখারও সুযোগ মেলেনি তার।

পরে হিটলার নাজিদের সঙ্গে যোগ দেন। ১৯২১ সালে তাদের নেতা হয়ে ওঠেন। পরের বছর জার্মান সোশালিস্ট পার্টিকে বিলুপ্ত করা হয়। বইয়ে ওয়েবার লিখেছেন, হিটরার তার শত্রুদের বিরুদ্ধে আজীবন প্রতিশোধের খেলায় মেতে ওঠেন।

কিন্তু কেন সোশালিস্টরা হিটলারকে নিজেদের দলে টানেনি? ওয়েবারের মতে, হিটলার মতামত প্রকাশে স্পষ্টবাদী ছিলেন। হয়তো দলটি এমন কোনো সদস্যকে চায়নি যে কিনা তাদের করণীয় সম্পর্কে পরামর্শ দেবে।

চলুন জেনে নিই হিটলার সম্পর্কে অবাক কিছু তথ্য-

১. ইহুদি তরুণীর প্রেমে পড়েছিলেন হিটলার:
হিটলার নাকি ইহুদি বিদ্বেষী ছিলেন, কিন্তু অবাক বিষয় হল সেই হিটলারই স্কুলে পড়ার সময় এক ইহুদি মেয়ের প্রেমে পড়েছিলেন। তার নাম ছিল স্টেফানি ইসাক। যদি মেয়েটিকে কখনো কিছু বলেননি। তবে ইসাককে দেখলেই তিনি দারুণ লজ্জাবোধ করতেন।

২. হিটলার ধর্মযাজক হতে চেয়েছিলেন:
মাত্র ৪ বছর বয়সে সেই ইচ্ছাই দেখা দিয়েছিল হিটলারের মনে। এক শীতে সেই বয়সে একটি লেকে পড়ে যান তিনি। তাকে উদ্ধার করেন এক ধর্মযাজক। ঘটনাটি তার মনকে আলোড়িত করে। মনের কৃতজ্ঞতা আর ভালোলাগা থেকেই তিনি বড় হয়ে ধর্মযাজক হওয়ার স্বপ্ন দেখেন।

৩. গাড়ি চালানো জানতেন না:
হিটলার কখনো ড্রাইভিং শেখেননি। চেষ্টাও করেননি। অনেকের ধারণা, তার মনে এক ধরনের ভয় কাজ করত। নিজের মানুষের সামনে যদি গাড়ি চালনায় দক্ষ না হতে পারেন, তবে তা সম্মানহানিকর। তবে নিজের বিশাল সেনাবাহিনীকে ব্যক্তিগত চালকের মাধ্যমে গাড়ি চালিয়েই নেতৃত্ব দিয়েছেন।

৪. ধূমপান বিরোধী:
তরুণ বয়সে ব্যাপক ধূমপান করলেও এক পর্যায়ে তিনি এর বিরোধী হয়ে ওঠেন। সিগারেটের পেছনে অর্থের অপচয় হয় বলেই মনে করতেন। গণপরিবহনে ধূমপান নিষিদ্ধকরণে অ্যান্টি-স্মোকিং ক্যাম্পেইনও করেছেন তিনি।

৫. একটি অণ্ডকোষ:
অনেকেই এ কথা বলে গেছেন যে, হিটলার উর্বরতাজনিত সমস্যায় ভুগছিলেন। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় তিনি যুদ্ধরত অবস্থায় আঘাত পেয়েছিলেন।সার্জারিতে চিকিৎসক তার একটি অণ্ডকোষ বের করে ফেলেন। তার জীবন বাঁচাতেই এ কাজটি করতে হয়। ১৯১৬ সালে ব্যাটল অব সোমি-তে এমন ঘটনা ঘটেছিল।