দেশ

তালতলীতে জমি নিয়ে বি’রো’ধ, দুই ভাইকে কু’পি’য়ে জ’খ’ম

আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি।।
বরগুনার তালতলীতে বিরোধীয় জমির সালিস বৈঠক চলাকালে প্রতিপক্ষের লোকজন দুই ভাইকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করেছে। বরগুনার তালতলী উপজেলার পচাকোড়ালিয়া ইউনিয়নের হাড়িপাড়া গ্রামে শনিবার পৌনে ২টার সময় এঘটনা ঘটে। আহত দুই ভাইকে স্বজনরা উদ্ধার করে বরিশাল শেবাচিম হাসপতালে নিয়ে ভর্তি করেন।
পুলিশ ও আহতদের সূত্রে জানা গেছে, তালতলী উপজেলার পচাকোড়ালিয়া ইউনিয়নের হাড়িপাড়া গ্রামের আদম আলী পহলানের ছেলে নজরুল ইসলাম পহলান ও তার ভাই সাদ্দাম পহলানের সাথে সৎ ভাই রশিদ পহলান, মস্তফা পহলান, আবুল হোসেন পহলান, চাচা আফজাল পহলান, চাচাত ভাই স্বপন পহলান ও মিলন পহলানের সাথে ২২ বিঘা জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। এ নিয়ে একাধিক বার সালিস বৈঠকও হয়েছে কিন্তু কোন সুরহা হয়নি। শনিবার দুপুরে বিরোধীয় এই জমি নিয়ে নলবুনিয়া গ্রামের ছত্তার হাওলাদারের বাড়িতে সালিশ বৈঠক চলছিল। ওই বৈঠকে যোগ দেওয়ার জন্য সাদ্দাম পহলান (২৮) বাড়ির বাহিরে যাওয়া মাত্র প্রতিপক্ষ সৎভাই রশিদ পহলান, মস্তফা পহলান, আবুল হোসেন পহলান, চাচা আফজাল পহলান, চাচাত ভাই স্বপন পহলান ও মিলন পহলান ধরে নিয়ে লোহার রড দিয়ে পিটাতে এবং ধারালো রামদা দিয়ে কোপাতে থাকে। এসময় সাদ্দামের ডাক চিৎকার শুনে বড় ভাই নজরুল ইসলাম পহলান (৩৮) রক্ষার জন্য এগিয়ে গেলে তাকেও লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে দুই হাত ভেঙ্গে দেয় এবং রামদার কোপে বাম হাত এবং ১টি আঙ্গুলে গুরুতর জখম করে। গুরুতর আহত দুই ভাইকে আমতলীতে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়।
আহত নজরুল ইসলাম পহলাম বলেন, সৎ ভাই রশিদ পহলান, মস্তফা পহলান, আবুল হোসেন পহলান, চাচা আফজাল পহলান, চাচাত ভাই স্বপন পহলান ও মিলন পহলানের সাথে আমাদের ২২ বিঘা জমি নিয়ে বিরোধ চলছে। বিরোধীয় ওই জমি নিয়ে আজ সালিশ বৈঠক চলছিল। সালিশে যোগ দেওয়ার জন্য আমার ভাই সাদ্দাম যাওয়ার পথে তাকে ধরে আটকিয়ে রামদা দিয়ে কুপিয়ে এবং লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর জখম করে। খবর পেয়ে আমি ছুটে গেলে আমাকে লোহার রড এবং রামদা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে।
অভিযুক্ত দলের আফজাল পহলান পাল্টা অভিযোগ করে বলেন, নজরুল এবং তার ভাই সাদ্দাম আমার ছেলে বেল্লাল পহলান (৪০) ও রাসেদুল পহলান (৩৫) পিটিয়ে জখম করেছে। তাদেরকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
আমতলী হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক ডা. জায়েদ আলম ইরাম বলেন, সাদ্দাম পহলানের মাথায় ৪টি এবং হাতে কোপের এবং তার ভাই নজরুলইসলাম পহলানের হাতে কোপ এবং পিঠে ও হাতে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।
তালতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. শহিদুল ইসলাম খান বলেন, জমি নিয়ে হামলার  খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। অভিযোগ পাওয়া গেলে আবইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button