Home প্রধান খবর ডেমোক্রেটিক পার্টি যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনের ফলাফলে এগিয়ে

ডেমোক্রেটিক পার্টি যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনের ফলাফলে এগিয়ে

50
0
SHARE

আন্তর্জাতিক ডেস্ক।।

যুক্তরাষ্ট্রের আইনসভা কংগ্রেসের প্রতিনিধি পরিষদ ও সিনেটে মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত ভোটাভুটি শেষে গণনায় দেখা যাচ্ছে এগিয়ে আছে সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের রিপাবলিকান পার্টি। প্রতিনিধি পরিষদ ও সিনেটের কয়েকটি আসনের ফলাফলও আসতে শুরু করেছে। যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদের নির্বাচনের ফলাফলে এখন পিছিয়ে আছে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ডেমোক্রেটিক পার্টি। সিএনএন প্রকাশিত ফলাফলে সর্বশেষ প্রতিনিধি পরিষদের ৪৩৫টি আসনের মধ্যে বাইডেনের ডেমোক্রেটসরা পেয়েছে ১৭২টি আসন। আর ট্রাম্পের রিপাবলিকানরা পেয়েছে ১৯৭টি আসন। প্রতিনিধি পরিষদে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে হলে কমপক্ষে ২১৮টি আসনে জয় পেতে হবে।

অন্যদিকে উচ্চকক্ষ সিনেটে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে ১০০টি আসনের মধ্যে কমপক্ষে ৫১টি আসনে জয় পেতে হবে। সিএনএনের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী সর্বশেষ ডেমোক্রেটরা সিনেটের ৪৮টি আসন এবং রিপাবলিকানরা ৪৭টি আসন পেয়েছে। উচ্চকক্ষ সিনেটে হাড্ডাহাড্ডি  লড়াই চলছে। প্রতিনিধি পরিষদ বিপাবলিকানদের দখলে চলে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রের নেটওয়ার্কগুলো প্রজেক্টে বলছে, ২০২৪ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রতিদ্বন্দ্বী ফ্লোরিডার গভর্নর রিপাবলিকান রন ডিস্যান্তিস নির্বাচিত হতে চলেছেন। অন্যদিকে রিপাবলিকান সিনেটর মারকো রুবিও স্বস্তিতেই ডেমোক্রেট প্রার্থী ভ্যাল ডেমিংসকে পরাজিত করছেন। ফ্লোরিডায় ডেমোক্রেট প্রার্থী ম্যাক্সওয়েল ফ্রস্ট মাত্র ২৫ বছর বয়সে নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন প্রতিনিধি পরিষদে। তিনি হবেন মার্কিন কংগ্রেসের প্রথম জেনারেশন জেড-এর সদস্য। উল্লেখ্য, ১৯৯৬ সালের পরে যারা জন্মগ্রহণ করেছেন তাদেরকে জেনারেশন জেড বলে আখ্যায়িত করা হয়।

বুথফেরত জরিপ বলছে নির্বাচনে ভোটারদের কাছে প্রধান ইস্যু ছিল মুদ্রাস্ফীতি এবং গর্ভপাত। শতকরা ৩২ ভাগ ভোটার বলেছেন তাদের কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ছিল দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি। শতকরা ২৭ ভাগ বলেছেন গর্ভপাতকে তারা অগ্রাধিকার দিয়েছেন। এসব তথ্য বেরিয়ে এসেছে এডিসন রিসার্চের ডাটা থেকে।

প্রতিনিধি পরিষদের ৪৩৫ আসনের সবটিতে এবং সিনেটের প্রায় এক তৃতীয়াংশ ৩৫টি আসনে এই মধ্যবর্তী নির্বাচন হচ্ছে। প্রতিনিধি পরিষদকে নিয়ন্ত্রণের জন্য রিপাবলিকানদের এখন আর  প্রয়োজন মাত্র ৫টি আসন। তবে সিনেট নিয়ে পেনসিলভানিয়া, অ্যারিজোনা, নেভাদা এবং জর্জিয়াতে চলছে তীব্র লড়াই। কয়েক দিনের মধ্যে এসব রাজ্যের ফল পাওয়া যাবে না বলে জানাচ্ছে মিডিয়া।

image_print