Home ঢাকা বিভাগ টাঙ্গাইল টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে মুক্তিযোদ্ধা মোশারফ হোসেনের বাড়িতে হামলা

টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে মুক্তিযোদ্ধা মোশারফ হোসেনের বাড়িতে হামলা

81
0
SHARE

খাদিজা আক্তার: টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার নারিন্দা ইউনিয়নের ঘোড়িয়া গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা মোশারফ হোসেনের বাড়িতে হামলা।

ঘটনা সূত্রে জানা যায় গত ১ লা জানুয়ারি (শুক্রবার) দুপুর এর সময় পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে বাড়ির জায়গা সম্পত্তির জের ধরে ঘটনাটি ঘটিয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, শাহজাহান ভূয়ার নেতৃতে একই গ্রামের প্রতিবেশী, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোশারফ হোসেনের বাড়িতে জুমার নামাজের সময় হামলা ও ভাংচুর চালায়।

এ সময় মোশারফ ও তার ভাতিজারা বাড়িতে না থাকায় মহিলাদের উপর বেআইনি ভাবে অনধিকার প্রবেশ করে দা, লাটি, লোহার রডসহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সজ্জিত হয়ে বাদী বীর মুক্তিযোদ্ধার বাড়ির সিমানা খুটি উঠিয়ে ফেলে । আসামীরা হলেন, মৃত আফজাল উদ্দিনের ছেলে
১/মোহাম্মদ আলী (৬৫), জমজ ভাই ২/ তায়েব আলী ও(৬২), ও ৩/ আবু তাহের (৬২),
উমর আলীর ছেলে ৪/ দুলাল (৩৫),
মোহাম্মদ আলীর ছেলে ৫/ আতিকুর রহমান (২৫), ৬/ হারুন আর রশিদ (৩৫),
আবু তাহের এর ছেলে ৭/ কামরুল ইসলাম প্রিন্টু (২৮), মুসলিম উদ্দিন ভূঁইয়ার ছেলে ৮/ মোফাজ্জল হোসেন (৩৮), ৯/ তোফাজ্জল হোসেন, ও ১০/ মজিবর রহমান (৪০), মৃত মোকাছেদ আলীর ছেলে ১১/ সোহেল (২২),
মোফাজ্জল হোসেনের ছেলে ১২/ আনিছ (২০), তৈয়ম উদ্দিনের ছেলে ১৩/ ওয়াজ আলী ভূঁইয়া (৬২), ঘটু মন্ডলের ছেলে ১৪/ আব্দুল আজিজ (৫৮), ও ১৫/ আব্দুল মজিদ (৫০), আব্দুল আজিজের ছেলে ১৬/ চাঁন মিয়া ওরফে চানু (৩২), ও ১৭/ মানিক (৩০), মৃত নরিফুল্লাহ এর ছেলে ১৮/ মজিবর (৪৬), ও ১৯/ আব্দুল রাজ্জাক (৫৫), মৃত জিন্নত আলীর ছেলে ২০/ হযরত আলী (৫০),হযরত আলীর ছেলে ২১/ মর্তূজ আলী (২৯), মৃত মছলেম উদ্দিনের ছেলে ২২/ ধল্লু (৩৫), মৃত ইনছুর এর ছেলে ২৩/মনোহর (৫০), মনোহর এর ছেলে ২৪/ হাফিজুর রহমান (২৫),

এরা সবাই টাঙ্গাইলের কালিহাতী ঘড়িয়া গ্রামের অধিবাসি ।

দীর্ঘ দিন ধরেই জমি জমার সীমানার খুটি নিয়ে শত্রুতা চালিয়ে আসছিলেন । শাহজাহান এর হুকুমে বিবাদীরা বাদীর সীমানা বাড়ীর খুটি ভাংচুর, বাড়ির ভিটা মাটি কোদাল দিয়ে কাটা সহ আশেপাশের ফসলাদি গাছপালা উপড়ে ফেলে এবং অন্যান্য ক্ষতি সাধন করে যার মূল্য প্রায় এক লক্ষ পঁচিশ হাজার টাকা । একই সময় বীর মুক্তিযোদ্ধার বসত বাড়ির টিনের ঘরের দরজা জানালা বাইড়িয়া ভাংচুর করে যার প্রায় মূল্য পঞ্চাশ হাজার টাকার ক্ষতি করেছে বলে অভিযোগ সূত্রে জানা যায়।

এছাড়াও বীর মুক্তিযোদ্ধার মোশারফ হোসেনের স্ত্রী ফুল খাতুন ও তার ভাইয়ের স্ত্রী সূর্য বেগম বাধা দিতে গেলে আসামীরা তাদের বাড়ি ভাংচুর করেই শান্ত না হয়ে তাদের উপর এলোপাতাড়ি মার পিট করে । এসময় মোশারফ হোসেনের স্ত্রী মাটিতে লুটিয়ে পড়ে । তখন আসামী রুবেল লোহার রড দিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে আঘাত করলে ডান পায়ের হাটুর নিচে আঘাত লেগে গুরতর জখম হয় এবং যাওয়ার পথে হুমকি যায় ।

সরজমিনে গিয়ে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায় এবং সেই সাথে স্থানীয় সাবেক ইউপি সদস্য মনছুরুল হক মিয়া ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ইতিপূর্বেই আদালতের রায়ের মাধ্যমে প্রশাসন তাদের সীমানা নির্ধারণ করে দিয়ে যান । দীর্ঘ দিন ধরেই তারা বসবাস করে আসছেন ।কিন্তু সম্প্রতি আদালতের রায় বিবাদীরা অমান্য করেন । এরা দাংগাবাজ লোক । এরা সমাজের কোন লোকজন কে মানে না, মন গড়া কাজ করে। ইতিপূর্বে একই জমিতে স্থানীয় চেয়ারম্যান শুকুর মাহমুদ সহ এলাকার মাতাব্বর গণ জমি পরিমাপ করে সীমা নির্ধারণ করে দিয়েছে।কিন্তু সে সীমানার খুটিও ভেঙ্গে ফেলেছে।

এ ব্যপারে নারিন্দা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শুকুর মাহমুদ এর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান ঘটনার বিষয়টি আমি অবগত । দীর্ঘদিন ধরেই এই জমি সংক্রান্ত সীমানা খুটি নিয়ে বিরোধ চালাচ্ছিলো শাহজাহান ভূইয়া । এরা কারো কথা মানে না, অহেতুক ঝামেলা করেছে এবং বাড়ি ঘর ভাংচুর করেছে । আমাকে মুক্তিযোদ্ধা মোশারফ হোসেন বিষয়টি জানিয়েছে এবং আমি সরজমিনে গিয়ে বিষয়টা নিশ্চিত হয়েছি । শাহজাহান ভুইয়ার লোকজন বিষয়টি অহেতুক অনধিকার ভাবে বাড়িতে পুরুষ মানুষের অনুপুস্থিতিতে বাদির বাড়িতে গিয়ে ভাংচুর সহ যে সমস্ত কাজ করেছে যা খুবই অন্যায়।

এ বিষয়ে কালিহাতি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শওগাতুল আলম এ ঘটনার বিষয়ে জিজ্ঞেস করলে তিনি জানান, বিষয়টি সম্পর্কে আমি অবগত না।