গুরুতর জখম মুখ্যমন্ত্রী, কপাল ফেটে রক্ত গড়াচ্ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক

বাড়ির চত্বরে হাঁটার সময় পড়ে গিয়ে গুরুতর জখম হলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁকে এসএসকেএম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। হাসপাতাল সূত্রে খবর, তাঁর কপালে সেলাই করা হবে।

বাড়ির চত্বরে হাঁটার সময় পড়ে গিয়ে গুরুতর জখম হলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁকে এসএসকেএম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। হাসপাতাল সূত্রে খবর, তাঁর কপালে সেলাই করা হবে। তৃণমূলের এক্স হ্যান্ডল (সাবেক টুইটার) থেকে মমতার কপাল ফেটে যাওয়ার ছবি প্রকাশ্যে আনা হয়েছে।

তৃণমূল সূত্রে জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার কালীঘাটের বাসভবন চত্বরে হাঁটছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা। সেই সময়েই কোনও ভাবে পড়ে যান তিনি। সামনের দিকে ঝুঁকে পড়ে যাওয়ায় কপালে চোট পান। গলগল করে রক্ত বেরোতে থাকে। প্রথমে তাঁকে বাড়ির ভিতরে নিয়ে যাওয়া হলেই সঙ্গে সঙ্গে এসএসকেএম হাসপাতালে স্থানান্তরিত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। চিকিৎসকরা দেখেই কপালে সেলাই করতে হবে বলে জানিয়েছেন।

হাসপাতাল সূত্রে খবর, মমতার ক্ষত বেশ গভীর। সিটি স্ক্যান করানো হবে। একটি মেডিক্যাল বোর্ডও গঠন করা হচ্ছে। চিকিৎসকদের পর্যবেক্ষণে রয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। মুখ্যমন্ত্রীর দ্রুত আরোগ্য কামনা করে টুইট করেছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার। প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী এক্স হ্যান্ডলে লিখেছেন, ‘‘বাংলার মুখ্যমন্ত্রীর দ্রুত আরোগ্য কামনা করি।

তৃণমূল সূত্রে খবর, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় যখন এই ঘটনা ঘটে, তখন মমতার কালীঘাটের বাড়িতেই ছিলেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর গাড়িতে করেই মমতাকে এসএসকেএম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। বৃহস্পতিবার দুপুরে জলপাইগুড়ির ময়নাগুড়িতে সভা করেছিলেন অভিষেক। সেখান থেকে কলকাতা ফিরেই তিনি সোজা মমতার কালীঘাটের বাড়িতে যান অভিষেক। মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন তিনি। অভিষেক যখন বাড়িতে ছিলেন, সেই সময়েই ওই দুর্ঘটনা ঘটে। অভিষেক ঘনিষ্ঠ মহলে জানিয়েছেন, মুখ্যমন্ত্রীর কপালে গভীর ক্ষত হয়েছে। কী করে এই ঘটনা ঘটল, তা এখনই স্পষ্ট নয়। তবে হাঁটার সময় মমতা পড়ে গিয়েছেন বলেই মনে করা হচ্ছে।

এ ছাড়াও আরও বেশ কয়েকটি সম্ভাবনার কথা উঠে এসেছে। বাড়ি চত্বরে হাঁটার সময় তিনি কারও সঙ্গে ধাক্কা খেয়েছেন কি না, বা তাঁকে কেউ ধাক্কা দিয়েছেন কি না, সেই সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না বলেই জানাচ্ছেন মমতার ঘনিষ্ঠ মহল।

অভিষেকের পাশাপাশি এসএসকেএম হাসপাতালে গিয়েছেন লতা বন্দ্যোপাধ্যায়, রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। গিয়েছেন ছোট ভাই বাবুন বন্দ্যোপাধ্যায়ও। বাবুনের মন্তব্য নিয়ে বুধবারই সরগরম হয়েছিল রাজ্য-রাজনীতি। লোকসভা ভোটে হাওড়া দক্ষিণ কেন্দ্র থেকে তাঁকে প্রার্থী না করা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন বাবুন। তা নিয়ে শোরগোল পড়তেই কড়া ভাষায় তার নিন্দা করেছিলেন মমতা। ছোট ভাইকে ধমক দিয়ে তাঁর সঙ্গে সমস্ত সম্পর্ক ছিন্ন করার কথাও ঘোষণা করেছিলেন।

এই বিভাগের আরো খবর