আজ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশের টিকে থাকার লড়াই

​​​​​​খেলাধুলা ডেস্ক:
এশিয়া কাপের সুপার ফোরের লড়াইয়ে আজ স্বাগতিক শ্রীলঙ্কার মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ। এশিয়া কাপে শুরু থেকেই স্বস্তিতে থাকতে পারেনি বাংলাদেশ দল। আর সে কারণেই বারবার কঠিন চ্যালেঞ্জে পড়তে হচ্ছে। আজ আরেকটি চ্যালেঞ্জ নিজেদের টিকিয়ে রাখার। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে পরাজিত হলে ছিটকে যাওয়া অনেকটাই নিশ্চিত হয়ে যাবে। আজ কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে স্বাগতিক শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ। সুপার ফোর পর্বের এই দ্বিতীয় ম্যাচটি বেলা ৩টা ৩০ মিনিটে মাঠে গড়াবে। এই পর্বে টানা দ্বিতীয় ম্যাচ খেলতে নামছে বাংলাদেশ। আগের ম্যাচটি স্বাগতিক পাকিস্তানের বিপক্ষে লাহোরে খেলে এবার কলম্বোয় এসেছে সাকিব আল হাসানের দল। কখনো জ্বলে ওঠা ব্যাটিং বিভাগ অধিকাংশ সময়ই একেবারে নিষ্প্রভ হয়ে পড়ে। সেটাই এখন এই ম্যাচে উন্নতির ক্ষেত্রে বড় অন্তরায় হয়ে উঠবে। এ ম্যাচেও তাই একাদশে কয়েকটি পরিবর্তন নিয়েই নামতে হবে। আর একটানা কম্বিনেশনে পরিবর্তন আসার কারণেই বাংলাদেশের পারফর্ম্যান্সে উত্থান-পতন। এবার সেসব ঘাটতি কাটিয়ে উঠে আজ লঙ্কানদের বিপক্ষে জয়ের জন্যই নামবে বাংলাদেশ। আর শ্রীলঙ্কা আজ সুপার ফোরের প্রথম ম্যাচ খেলতে নামছে। গ্রুপ পর্বে বাংলাদেশকে অনায়াসে হারানোর আত্মবিশ্বাসে আজও জিততেই নামবে তারা।

এবার এশিয়া কাপ শ্রীলঙ্কার দ্বিতীয় সারির বোলিং আক্রমণের বিপক্ষে সুবিধা করতে পারেনি বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইন। নিজেদের দক্ষতা অনুসারে না খেলতে পারা এবং এলোমেলো ব্যাটিংয়ে ভরাডুবি হয়েছে। অথচ সেই একই বোলিং বিভাগকে তুলোধুনো করেছে আফগানিস্তানের ব্যাটাররা। বাংলাদেশ যেই লঙ্কানদের কাছে ৫ উইকেটে হেরেছে, তারাই আবার আফগানদের কাছে হারতে হারতে ২ রানের জয় পেয়েছে। টানা দুই জয়ে ৪ পয়েন্ট নিয়ে বেশ স্বাচ্ছন্দ্যেই সুপার ফোরে পা রেখেছে লঙ্কানরা। এখন ফিরতি ম্যাচে আবার বাংলাদেশকে পেয়েছে তারা। গত ৫ সেপ্টেম্বর লাহোরে আফগানদের বিপক্ষে কঠিন ম্যাচ খেলার পর কলম্বো এসে মাঝে ৩ দিন তারা সুযোগ পেয়েছে গুছিয়ে নেওয়ার। তাই আরেকবার বাংলাদেশের বিপক্ষে জিতেই সুপার ফোর শুরু করার লক্ষ্য তাদের। তবে আগের ম্যাচে বোলিং বিভাগ যেভাবে বেধড়ক পিটুনি খেয়েছে সেটি নিয়েই এখন কিছুটা চিন্তার মধ্যে রয়েছে তারা।

সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়ানোর পরিকল্পনাই আঁটবে তারা। বাংলাদেশের ব্যাটিং বিভাগ রয়েছে সমস্যায়। আজকের ম্যাচেও তাই পরিবর্তন আসার সম্ভাবনা প্রবল। সেক্ষেত্রে এনামুল হক বিজয় একাদশে সুযোগ করে নিতে পারেন। লিটন কুমার দাসকে আবার তার নিয়মিত পজিশন ওপেনিংয়ে দেখতে পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সেক্ষেত্রে তিনি আর মেহেদি হাসান মিরাজ ওপেনিংয়ে এবং বিজয় ওয়ানডাউনে খেলতে পারেন। নাঈম শেখ ৩ ম্যাচে ভালো শুরু করলেও ইনিংসটাকে বড় করতে পারেননি এবং বাজেভাবে আউট হয়েছেন। সে কারণে তিনি একাদশের বাইরে যেতে পারেন। আর ব্যর্থ আফিফ হোসেন ধ্রুবর জায়গায় বাড়তি স্পিনার হিসেবে নাসুম আহমেদ সুযোগ পেতে পারেন।

বাংলাদেশের বোলিং বিভাগ এখন পর্যন্ত দুর্দান্ত পারফর্ম করেছে সব ম্যাচে। প্রতিপক্ষ ব্যাটারদের বিপক্ষে সবচেয়ে ভালো করেছেন বাঁহাতি পেসার শরীফুল ইসলাম। সেই তুলনায় বেশ রান খরচ করেছেন ডানহাতি তরুণ হাসান মাহমুদ। তাই সেখানে একটি পরিবর্তন আসার সম্ভাবনা রয়েছে। বাঁহাতি পেসার মুস্তাফিজুর রহমান আবার ফিরতে পারেন একাদশে। কলম্বোয় ব্যাটিং-বোলিং দুই বিভাগের জন্যই সুবিধা থাকবে। তবে খুব বেশি স্বাচ্ছন্দ্য থাকবে না কারও জন্যই। তাই দেখেশুনেই খেলতে হবে। গত কয়েকদিন এখানে অনেক বৃষ্টি হয়েছে। তবে আজকের আবহাওয়া পূর্বাভাসে দেখা গেছে বেলা ৩টা থেকে রান ১১টা ৩০ পর্যন্ত বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই। অবশ্য মেঘলা আকাশ থাকবে এবং বিদ্যুৎ চমকও দেখা যেতে পারে। সেক্ষেত্রে পুরো ম্যাচই বেশ নির্বিঘেœ শেষ হবে এমনটাই আশা করা যাচ্ছে। তবে কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ দল কোনো জয় পায়নি। এই ভেন্যুতে ১৯৯৭ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডে খেলে বাংলাদেশ দল। এরপর ১০ ওয়ানডে খেলেছে স্বাগতিক শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে। কোনোবারেই জিততে পারেনি।

এবার তাই জয় তুলে নেওয়া বেশ কঠিনই হবে সাকিবদের জন্য। তবে কিছুদিন আগে এই ভেন্যুতে লঙ্কা প্রিমিয়ার লিগ (এলপিএল) খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে সাকিব ও তাওহিদ হৃদয়ের। শরীফুলও ছিলেন দলের সঙ্গে। তাদের উইকেট সম্পর্কে এবং পরিবেশ নিয়ে যথেষ্ট জানা আছে। সেটাই এখন মাঠে কাজে লাগানোর অপেক্ষা। যদিও তাওহিদ ফর্মে নেই, তার কাছ থেকে আজ অবশ্যই বাংলাদেশ ভালো কিছুর প্রত্যাশায় থাকবে। এই ম্যাচে নামার আগে শুক্রবার সন্ধ্যায় মাত্র একটা সেশন অনুশীলন করার সুযোগ পেয়েছে বাংলাদেশ দল। সেখান থেকে কতখানি নিজেদের প্রস্তুত করতে পেরেছে তা খেলা মাঠে গড়ানোর পরই বোঝা যাবে।

এই বিভাগের আরো খবর