Home অর্থ ও বানিজ্য স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে ড্রোন শো, লেজার শোর অনুষ্ঠান হচ্ছে: অর্থ মন্ত্রী

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে ড্রোন শো, লেজার শোর অনুষ্ঠান হচ্ছে: অর্থ মন্ত্রী

49
0
SHARE

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ মহামারি করোনার প্রকোপ বৃদ্ধির কারণে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে ড্রোন শো, লেজার শোর অনুষ্ঠান হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

আজ বুধবার (১০ মার্চ) দুপুরে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে বর্ণাঢ্য ও যথাযোগ্য মর্যাদার সাথে উদযাপন উপলক্ষে এ সংক্রান্ত প্রস্তাবের মধ্যে ড্রোন শো ও লেজার শোর অনুষ্ঠান বাদ দিয়ে প্রস্তাবটির অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

বৈঠক শেষে প্রস্তাবগুলোর বিভিন্ন দিক তুলে ধরে অর্থমন্ত্রী বলেন, আজকে অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির ৮ম এবং সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি’র ১০ম সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটিতে অনুমোদনের জন্য ৩টি এবং ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটিতে ৩টি প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়েছে।

ক্রয় সংক্রান্ত কমিটির প্রস্তাবগুলোর মধ্যে জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগের ২টি এবং সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের ১টি প্রস্তাবনা ছিল। এতে মোট অর্থের পরিমাণ ৬৬৩ কোটি ৪৮ লাখ ১৬ হাজার ৯০১ টাকা। মোট অর্থায়নের মধ্যে সস্পূর্ণ অর্থই জিওবি থেকে ব্যয় হবে।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা বৈঠকে টেবিলে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে বর্ণাঢ্য ও যথাযোগ্য মর্যাদার সাথে উদযাপন উপলক্ষে ড্রোন শো, এরিয়াল শো ও ফায়ারওয়ার্কস শো সংক্রান্ত একটি প্রস্তাব উত্থাপিত হয়।

তিনি বলেন, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে আমরা ঠিক করেছিলাম একটি বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করব, যা এ দেশের মানুষ কোনদিন দেখেনি। এজন্য ড্রোন শো, লেজার শোর আয়োজন করা হবে। কিন্তু করোনার সংক্রমণ আবার বেড়ে যাচ্ছে। তাই এ সময়ে এ ধরনের শোর আয়োজন করলে আমাদের অনেক ছেলে মেয়েসহ পুরো ফ্যামেলি চলে আসবে। এতে করে কোনো সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা যাবে না।

এ ভয়ে আমরা এই অংশগুলো বাদ দিয়ে বাকি অংশগুলো উদযাপন করার জন্য আমরা অনুমোদন দিয়েছি। সেটাও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ও সামাজিক নিরাপত্তা বলয়ে যা যা পড়ে ও নিজেদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করে যা প্রয়োজন করে প্রস্তাবটি অনুমোদন দিয়েছি।

এর আগে গত ১০ ফেব্রুয়ারি অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটিতে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় কর্তৃক স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী বর্ণাঢ্য ও যথাযোগ্য মর্যাদার সাথে উদযাপন উপলক্ষে ড্রোন শো, এরিয়াল শো ও ফায়ারওয়ার্কস শো অনুষ্ঠান বাস্তবায়নের জন্য সরাসরি ক্রয় পদ্ধতি অনুসরণের নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়।

তখন প্রস্তাবের বিস্তারিত তুলে ধরে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, আগামী ২৬ মার্চ স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে দেশবাসীকে সম্পৃক্ত করে একটি বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠান উদযাপন হবে। সেখানে রোড শো, এরিয়াল শো, ড্রোন শো, এ জাতীয় অনুষ্ঠানের মাধ্যমে দেশবাসীকে আমরা যেসব অর্জনগুলো করেছি সেগুলো উপস্থাপন করতে চাই।

এগুলো যদি অফিসে বসে বসে করি তাহলে দেশবাসী জানতে পারে না। তাদের জানান দেওয়ার জন্যই আমরা এই কাজগুলো করতে চাই।

মনোমুগ্ধকর একটা পরিবেশ সৃষ্টি হবে। আবাল বৃদ্ধ বণিতা সবাই ওই শোটি উপভোগ করবে।