Home অর্থ ও বানিজ্য পরিবেশগত উন্নয়ন ও সুরক্ষা নিশ্চিতকরণ প্রকল্পে সহযোগীতার আহ্ববান অর্থমন্ত্রীর

পরিবেশগত উন্নয়ন ও সুরক্ষা নিশ্চিতকরণ প্রকল্পে সহযোগীতার আহ্ববান অর্থমন্ত্রীর

22
0
SHARE

অর্থনীতি প্রতিবেদক:

বিশ্বব্যাংক- আইএমএফ এর চলমান স্প্রিং মিটিং  ২০২১ এর অংশ হিসেবে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মু্স্তফা কামালের নেতৃত্বে বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল ও বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের ভাইস প্রেসিডেন্ট মি. হার্টউইগ শ্যেফার এর নেতৃত্বে বিশ্বব্যাংকের প্রতিনিধিদলের মধ্যে গতকাল সন্ধ্যায় এক ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের সদস্য অর্থমন্ত্রী, অর্থসচিব ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব  অংশগ্রহণ করেন। অন্যদিকে, বিশ্বব্যাংকের পক্ষে মি. হার্টউইগ শ্যেফার ও মিজ মার্সি মিয়াং টেম্বন অংশগ্রহণ করেন।

সভার শুরুতে অর্থমন্ত্রী বাংলাদেশের  সামগ্রিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে বিশ্বব্যাংকের অব্যাহত সহযোগীতার জন্য কৃতজ্ঞতা জানান। অর্থমন্ত্রী কোভিড-১৯ মহামারি মোকাবিলার লক্ষ্যে বিশ্বব্যাংকের গৃহীত দ্রুত ও সময়োযোগী বিভিন্ন উদ্যোগেরও প্রশংসা করেন। চলমান করোনা মহামারির কারণে দেশের ক্ষতিগ্রস্হ শ্রমবাজার, আর্থিক ও সামাজিক খাত সচল রাখবার লক্ষ্যে বর্তমান বিশ্বব্যাংকের Programmatic Jobs Development Policy Credit (DPC) প্রকল্পের আওতায় সাপোর্ট এবং COVID-19 ভ্যাকসিনের জন্য ৫০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার অর্থায়নের জন্য বিশ্বব্যাংকের প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন  করেন।

 

করোনা মহামারির কারণে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো ক্ষতিগ্রস্ত হলেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিচক্ষণ দূরদৃষ্টিসম্পন্ন নেতৃত্বে বাংলাদেশের অর্থনীতি এখন ভালো অবস্থানে রয়েছে উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, এই সঙ্কটময় পরিস্থিতির ভয়াবহতা প্রধানমন্ত্রী শুরুতেই অনুধাবন করতে পেরে দেশের সবধরনের অর্থনৈতিক স্তরের মানুষের জন্য এক লাখ ২৪ হাজার ৫৩ কোটি টাকার মোট ২৩টি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেন, যা একটি বিরল সাহসী পদক্ষেপ।

 

অর্থমন্ত্রী বাংলাদেশের সকল নাগরিকের জন্য বিনামূল্যে কোভিড-১৯ এ টিকা প্রদানের কার্যক্রম শুরুর বিষয়টিও উল্লেখ করেন। তিনি পরিবেশগত উন্নয়ন ও সুরক্ষা নিশ্চিতকরণের জন্য প্রস্তাবিত ‘Ecological Restoration Support to Rivers and Canals around Dhaka’ প্রকল্পে পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন; পরিবহন; নদী কেন্দ্রিক পর্যটনের উন্নয়নে টেকসই পরিবেশ-বান্ধব অবকাঠামো তৈরী এবং সুশাসন প্রতিষ্ঠায় সহযোগীতার জন্য বিশ্বব্যাংকের প্রতি অনুরোধ জানান। পাশাপাশি কর্মক্ষেত্রে নারীদের অংশগ্রহণ আরো বৃদ্ধিকরণের লক্ষ্যে ছাত্রীদের জন্য প্রযুক্তিগত ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা প্রকল্পে এবং করোনার প্রভাব মোকাবেলায় বাজেট সাপোর্ট হিসেবে ৫০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সহযোগীতার আহ্ববান জানান। বিশ্বব্যাংকও এ বিষয়গুলো ইতিবাচকভাবে দেখা হবে বলে সভায় অভিমত ব্যক্ত করে।